ঘরে বসে আয়

ঘরে বসে আয় করার‌‌ জন্য‌ বেস্ট ৫ টি স্কিল।

Best 5 Skills to Earn From Home

Welcome To (ERIN)

ডিজিটাল যুগে ঘরে বসে আয় করাটা অলৌকিক ঘটনা না । ‌যুগের সাথে তাল‌ মিলিয়ে এবং ইন্টারনেট ব্যবহার এর ফলে মানুষ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে বাসায় বসে ইনকাম করতেছে।

ঘরে বসে আয় করার কথাটা শুনতে সহজ মনে হলেও এতোটা সহজে ইনকাম করা যায় না ।

বাসায় বসে ইনকাম করতেছে  জন্য আপনার ট্রেন্ডিং বিসয় গুলি নিয়ে রিসার্চ করতে হবে এবং পুরোপুরি কাজ গুলো আয়ত্ত করতে হবে।

  • বাংলাদেশে বেকারত্ব দিক থেকে অনেক এগিয়ে আছে।
  • দিন‌ দিন বেকারত্বর হার বেড়ে চলেছে কারন তারা টেকনোলজি বিস্ময় গুলো নিয়ে অবগত না।
  • চেষ্টা করলে একজন বেকার ছেলে/মেয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করে ঘরে বসে আয় করতে পারবে।

বিষয় গুলো একবারে কঠিন না আবার এতোটা সহজ না,তবে আপনার ইচ্ছা শক্তি এবং ধৈর্য পারে জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দিতে।

ঘড়ে বসে আয় করার জন্য অনেক উপায় রয়েছে.

তবে আপনি আজকে আয় করার জন্য কাজ শুরু করলেন আগামী কাল আয় শুরু হবে বিসয় টা এমন নয়।

আপনার উচিত ভালো ভাবে একটি বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করা।

তাতে আপনার সময় লাগতে পারে পরবর্তীতে আপনার দক্ষতা অর্জন হয়ে গেলে নিজেকে পরিপূর্ণ তেরি করুন আপনাকে ঘরে বসে আয় করা থেকে কেউ বিরত রাখতে পারবে না।

তবে খুব সাবধানের সাথে আপনার সকল বিষয় অবগত থাকতে হবে,

কারন অনলাইনে ফেইক মানুষদের আনাগোনা একটু বেশি। তাই কোথাও থেকে কাজ করার আগে তার সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন।

ঘরে বসে আয় করার জন্য নিচে ৫ টি জনপ্রিয় স্কিল এর নাম বলা হলো :

  1. APP Development

  2. Website Development

  3. GRAPHICS DESIGN

  4. DIGITAL MARKETING

  5. AFFILIATE MARKETING

বর্তমান সময়ে উপরের ৫ টি স্কিল বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এই ৫ টি দক্ষতা বিভিন্ন প্রক্রিয়া অবলম্বন করে ঘরে বসে নানা মানুষ আয় করতেছে।

এই ৫ টি স্কিল সম্পর্কে আপনার ধারণা দেওয়া হবে এবং কি ভাবে ঘরে বসে আয় করবেন তার পুরো গাইডলাইন দেওয়া

হলো।

(১) অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট কি ?

অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট হলো মোবাইল সফটওয়্যার অপ্লিকেশন তৈরি করা যা একটি মোবাইলের মাধ্যমে ব্যবহার করা যায়।

বর্তমান সময়ে অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট নিয়ে প্রচুর পরিমাণে চাহিদা রয়েছে ঘরে বসে আয় করার জন্য App Development একটি দারুন স্কিল।

অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট করে ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসে প্রচুর পরিমাণে কাজ রয়েছে এই কাজ গুলো করে আপনি ঘরে বসে আয় করতে পারবেন।

(২) ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট

একটি জনপ্রিয় স্কিল, একটা ওয়েবসাইটের ভিতরে যেই কাজ গুলো করতে হয় যেমন কোডিং ডিজাইন চিত্র অনুসরন ইত্যাদি প্রফেশনাল ওয়েবসাইট তৈরি করা শুরু থেকে শেষ অবধি ওয়েবসাইটি লাইভ করা পযন্ত এই কাজ গুলো করাকে ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট বলে।

ঘরে বসে আয় করার জন্য ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট করে খুব সহজেই Earn করা যায় তবে ওয়েবসাইট  ডেভেলপমেন্ট করার জন্য আপনার যথেষ্ট পরিমাণ স্কিল গ্ৰহন করতে হবে।

ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসে ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট এর দক্ষতা বিক্রি করে হাজারো ছেলে/মেয়ে ঘরে বসে আয় করতেছে।

(৩) গ্ৰাফিক্স ডিজাইন

এই স্কিলটি অনেক আগে থেকেই জনপ্রিয় আপনি যদি একজন ক্রিয়েটিভ ব্যক্তি হয়ে থাকেন সেই ক্ষেত্রে গ্ৰফিক্স ডিজাইন করে ঘরে বসে আয় করতে পারবেন।

গ্ৰাফিক্স ডিজাইন মূলত বিভিন্ন ডিজাইন তৈরি করাকে বুঝায় যেমন ব্যানার, লোগো, YouTube থাম্বনেইল, পোস্টার , টি সার্ট ডিজাইন ইত্যাদি এই সম্পর্কে যদি আপনার প্রোপার স্কিল থাকে সেই ক্ষেত্রে এই ডিজাইন করে আয় করা সম্ভব।

তাছাড়া ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে গ্ৰিফিক্স ডিজাইনের প্রচুর চাহিদা রয়েছে লোকাল মার্কেটেও বর্তমান সময়ে বেশি কাজ পাওয়া যাচ্ছে তাই সঠিক নিয়ম অনুসরন করে যদি একজন এক্সপার্ট গ্ৰফিক্স ডিজাইনার হতে পরলে ঘরে বসে আয় করা সম্ভব।

(৪) ডিজিটাল মার্কেটিং

বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় একটি সেক্টর ডিজিটাল মার্কেটিং স্কিল। ডিজিটাল মার্কেটিং এর মানে হচ্ছে ডিজিটাল প্রক্রিয়া অবলম্বন করে প্রোডাক্ট সার্ভিস অথবা প্রতিষ্ঠানের প্রচার প্রসার করা ।

ঘরে বসে আয় করার জন্য Digital Marketing একটি সহজ পদ্ধতি। অনেকগুলো সেক্টর রয়েছে ডিজিটাল মার্কেটিং এর যেমন

  •  (SEO)
  • (SMM)
  • Lead Generation
  • Email Marketing

ইত্যাদি আরোও বিভিন্ন কাজ রয়েছে এই কাজ গুলো খুব সহজেই করতে পারবেন।

ব্যবসায়ার ক্ষেত্রে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে ব্যবসা উচ্চতর এ নিয়ে যেতে পারবেন।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা যেকোনো মার্কেটপ্লেসে রয়েছে এবং ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস গুলোতে হাজার হাজার ব্যক্তিরা ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয় করতেছে।

ঘরে বসে আয় করার জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং একটি গুরুত্বপূর্ণ স্কিল।

(৫) অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে ই-কমার্স ওয়েবসাইট থেকে যেমন Amazon,Ali Baba.com,Daraz.com আরোও বিভিন্ন প্রকার ওয়েবসাইট আছে।

পন্যের লিংক নিয়ে এসে বিভিন্ন প্লাটফর্মে সেয়ার করারা মাধ্যমে যদি আপনার লিংকে ক্লিক করে কোনো‌ পন্য ক্রয় করে পন্যের দাম অনুযায়ী একটি  কমিশন জেনারেট হবে এটাই মূলত অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং।

ঘরে বসে আয় করার জন্য Affiliate Marketing গুরুত্বপূর্ণ স্কিল।

আরোও বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা যায় আপনি যত বেশি ই-কমার্স ওয়েবসাইট গুলো থেকে প্রোডাক্ট এর লিংক কপি করে সেয়ার করবেন তত বেশি আয় করতে পারবেন।

ভালোভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং শিখতে পারলে ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসে প্রচুর পরিমাণে কাজ পাওয়া যায়।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বা ফ্রিল্যান্সিং এর‌ মাধ্যমে বাসায় বসে ইনকাম করতে পারবেন খুব সহজেই।

ইন্টারনেট ব্যবহার করে বাসায় বসে ইনকাম  করার জন্য প্রথমথ আপনাকে SEO সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে এবং keyword research এই সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিতে হবে।

উপরে যেই ৫টি স্কিল এর কথা বলা হয়েছে এগুলো বর্তমান ২০২৪ সালে ট্রেন্ডিং স্কিল হিসাবে পরিচিত খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বর্তমান সময়ে।

মেয়েদের ঘরে বসে আয় করার উপায়?

আজকের যেই ৫ টি স্কিল সম্পর্কে বলা হয়েছে এগুলো শুধু ছেলেদের জন্য না মেয়েরাও সমান ভাবে কাজ করতে পারবে।

মার্কেট প্লেস গুলোতে,

অনলাইন আয়ের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসে গুলোতে মেয়েরা বেশি কাজ‌ করতেছে Student বা সংসারিক কাজের পাশাপশি মেয়েদের বাসায় বসে ইনকাম করার উপায়।

মেয়েদের ক্ষেত্রে ঘরে বসে পার্ট টাইম জব হিসাবে ডিজিটাল মার্কেটিং অথবা অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর উপর স্কিল অর্জন করতে হবে।

এই ২ টি স্কিল খুব সহজেই অর্জন করতে পারবে এবং কাজ করতে পারবে তাছাড়া ও এ্যপস ডেভেলপমেন্ট, ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট,গ্ৰফিক্স ডিজাইনা এই স্কিল গুলো খুব ডিমান্ড রয়েছে তাই সব গুলো স্কিল ভালো।

আগামি ৫ বছর এই স্কিল গুলো আরোও বেশি জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে। অনলাইনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আরোও  বাড়তেছে এই মুহূর্তে আপনার অনলাইন বিষয়ক দক্ষতা থাকলে বাসায় বসে ইনকাম করতেছে করা সম্ভব।

শেষ আলোচনা

ঘরে বসে আয় করার জন্য আপনার ইচ্ছা শক্তি এবং ধৈর্য ধারণ করতে হবে আপনি আজকেই যেই কোনো স্কিল অর্জন করলেই আগামীকাল Earn হবে না তারজন্য প্রচুর পরিমাণে রিসার্চ করতে হবে‌।

অনলাইন সম্পর্কে ভালোভাবে ধারনা নিতে হবে এবং মার্কেটপ্লেস গুলো সম্পর্কে রিসার্চ করতে হবে। খুব জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস গুলোর নাম নিচে দেওয়া হলো:

Upwork, Fiver, Freelancer.com, Guru.com. এই গুলো ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেস এবং খুব জনপ্রিয় Trusted মার্কেটপ্লেস।

বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম থেকে কাজ পাওয়া যায় তার মধ্যে LinkedIn অন্যতম জনপ্রিয় প্লাটফর্ম। লিংকডিন এর মাধ্যমে আয় করা যায় খুব সহজেই যদি আপনি‌ সঠিক স্কিল অর্জন করতে পারেন।

(FAQ) প্রশ্ন/উত্তর

প্রশ্ন:(১) SMM এর অর্থ কি?

উঃ সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

প্রশ্ন:(২)SEO এর অর্থ কি?

উঃ সার্চ ইঞ্জিন অপ্টামাইজেশন।

প্রশ্ন:(৩) ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে কত দিন কত দিন সময় লাগে?

উঃ ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে ভালোভাবে শিখতে গেলে ৫-৬ মাস লাগতে পারে এবং রিসার্চ করতে হবে বেশি বেশি।

 

আরোও ইনফরমেটিভ তথ্য পেতে আমাদের সাথেই থাকুন ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *